ক্ষতিকারক পোকামাকড়

আমাদের চারপাশে যেমন রয়েছে উপকারি পোকামাকড় তেমনি ক্ষতিকারক পোকামাকড় ও রয়েছে । বিভিন্ন পরিস্থিতিতে এই সব পোকামাকড় সংস্পর্শে এলে কামড় কিংবা হুল ফুটানোর মত ঘটনা ঘটে থাকে । আর সময় মত সঠিক চিকিৎসা না নিলে এই ছোট কামড় কিংবা হুল মারাত্নক ক্ষতি হতে পারে । তাই কিভাবে বিষাক্ত পোকামাকড়ের কামড়ের বিষক্রিয়া থেকে দ্রুত মুক্তি পাওয়া যায় ? সেই গুলো জানা আমাদের অন্তত্য জরুরি ।

বিষাক্ত পোকামাকড়ের কামড়ের বিষক্রিয়া থেকে দ্রুত মুক্তি পাওয়ার জন্য আমাদের করনীয়ঃ

১. কামড় আনুভবের সাথে তাৎঃক্ষনিক ভাবে আপনি যা করতে পারেনঃ

∞ যখনি কামড় আনুভব করবেন তখন সাথে সাথেই কামড়ের স্থান থেকে একটু উপরে একটি সুতা দিয়ে বাঁধ দিন । যেন বিষ পুরো শরীরে ক্রিয়া করতে না পারে ।

কিভাবে ইনফো এ লিখুন লেখক হয়ে সবাইকে কিছু তথ্য জানান

লেখালেখি করে আপনি জিততে পারেন আকর্ষনীয় পুরষ্কার! বিস্তারিত দেখুন

∞ পাশবর্তী দোকান কিংবা বাড়িতে সরিষার তৈল পাওয়া গেলে ২০ মিলি /৪০ মিলি খেয়ে নিবেন । এটি বিষক্রিয়া বন্ধ রাখতে সাহায্য করে ।

∞ খুব বেশি নড়াচড়া করবেন না । কারন বেশি নড়াচড়া করলে বিষ সারা শরীরে ছড়িয়ে পড়বে ।

∞ জয়ন্তীপাতা ও চন্দন একত্রে বেটে কামড়ের স্থানে দ্রুত লাগিয়ে দিন ।

∞ তেঁতুলের বীজ কিংবা কটকী মূল বেটে লাগালে ও উপকারিতা পাওয়া যায় ।

২ . ব্যথা বা কামড়ের স্থানের ফুলানো কমানোর জন্য করনীয় সমূহঃ

∞ প্রথম ৬ ঘণ্টার প্রতি ঘণ্টায় ১৫/২০ মিনিট করে বরফ ব্যবহার করুন ।বরফ ব্যবহারের সময় ব্যবহারিত স্থানে একটি কাপড় ব্যবহার করুন ।

∞ প্রাথমিক চিকিৎসার জন্য ফুলে যাওয়া কিংবা ব্যথা কমানোর জন্য Benadry কিংবা chlor Trimeton ওষুধ খেতে পারেন ।

∞ Benzocaine জাতীয় স্প্রে ব্যবহার করতে পারেন ।

∞ সোডা ,গুড় ,চিনি একত্রে মিশিয়ে মালিশের মত করে লাগালে ও তাড়াতাড়ি যন্ত্রনা কিছুটা কমবে ।

∞ রসূন ,পেঁয়াজের রস কিংবা চুন লাগালে ও ব্যথা কিছুটা কমে যাবে ।

৩ . যে সকল খাওয়া থেকে বিরত থাকতে হয়ঃ

∞ (২-৩ ) দিন দুধ মিষ্টি জাতীয় খাদ্য খাওয়া থেকে বিরত থাকুন

∞ শুকনো জাতীয় খাবার গ্রহন করুন । যেমনঃ চিড়া ,মুড়ি ইত্যাদি ।

৪ . প্রতিকারের জন্য আপনি যে সকল ওষুধ ব্যবহার করতে পারেনঃ

∞ Aspirin : Bufferin

∞Ibuprofen : Mortin

∞ Acetaminophen : Tylenol

৫. আরো কিছু তথ্যঃ

∞ ওষুধ সেবনের পূর্বে নিয়মাবলী গুলো পড়ে নিন ।

∞ যতটুকু সেবনের কথা বলা আছে ঠিক ততটুকুই সেবন করুন ।

∞ ১০ বছরের নিচে অর্থাৎ শিশুদের ক্ষেত্রে ডাক্তারের পরামর্শ নিয়ে ওষুধ সেবন করুন ।

∞ গর্ভবতী মহিলাদের ক্ষেত্রে ও ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ সেবন করবেন না ।

তবে মনে রাখবেন , প্রতিকারের চাইতে অবশ্যই প্রতিরোধ উত্তম । তাই সব সময় সাবধান থাকবেন যেন এই ধরনের বিষাক্ত পোকামাকড় আপনার সংস্পর্শে আসতে না পারে ।

এরকম আরো তথ্য যুক্ত করতে আমাদের সাথে যোগ দিন

মন্তব্যসমূহ

জনপ্রিয় হচ্ছে

নিবন্ধন

লগিন করুন

পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

আমাদের সম্পর্কে

কিভাবে ইনফো - Kivabe Info

কিভাবে ডট ইনফো একটি বাংলা তথ্য শেয়ারিং সাইট। এএখানে আপনি নিজে যেমন জানতে পারবেন তেমনি চাইলে সবাইকে জানাতেও পারবেন।

সোশ্যাল মিডিয়া

যোগাযোগের জন্য

© কিভাবে ইনফো - Kivabe Info 2013-2021

Developed by: Behostweb.com

আপনি আমাদের সাথে একমত হয়ে এই ওয়েবসাইট ভিজিট করছেন, এর মানে আপনি আমাদের কুঁকি পলিসি গ্রহন করেছেন। পড়ুন প্রাইভেসি পলিসি . সব কুঁকি মেনে নিন