যে কোন জরুরী মুহূর্তে চিকিৎসার আগেই কিছু পদক্ষেপ নিতে হয়। একে প্রাথমিক চিকিৎসা বা ফার্স্ট এইড বলা হয়। অনেক সময় হাতের কাছে যা কিছু আছে তা দিয়েই এমন কিছু চিকিৎসা করে ফেলা যায়, তবুও আধুনীক সরঞ্জামাদি দরকার হয়। ফার্স্ট এইড বক্স এ এসব সরঞ্জাম রাখলে তা জরুরী মূহুর্তে রোগীর জীবন বাঁচাতে কিংবা বড় ক্ষতি থেকে রক্ষা করে। কিভাবে ফার্স্ট এইড বক্স তৈরি করা যায় তার বিস্তারিত পড়ুন। প্রাথমিক চিকিৎসা সরঞ্জাম হিসেবে কী কী কিনবেন তার তালিকাও দেওয়া হবে।

ফার্স্ট এইড বক্স তৈরি করা -প্রাথমিক চিকিৎসা

একটি ফার্স্ট এইড বক্স চাইলেই বাড়িতে বসে তৈরি করা যায়। ফার্স্ট এইড বক্স তৈরি করার জন্য কাঠ কিংবা বোর্ড দিয়ে বক্স তৈরি করুন। এর মধ্যে পর্যাপ্ত জায়গা রেখে দিয়ে ভেতরে যেন বায়ুরোধী করে তোলা যায় সেজন্য ফাঁকা স্থান গুলো গাম বা ফেবিকল দিয়ে বন্ধ করে দিন। এমন একটি দরজা রাখুন যেন তা তালা বন্ধ করে রাখা যায়। প্রাথমিক চিকিৎসা বক্স যেন আর্দ্রতায় ভিজে না থাকে।

কিভাবে ইনফো এ লিখুন লেখক হয়ে সবাইকে কিছু তথ্য জানান

লেখালেখি করে আপনি জিততে পারেন আকর্ষনীয় পুরষ্কার! বিস্তারিত দেখুন

ফার্স্ট এইড বক্স তৈরি করা
ফার্স্ট এইড বক্স
ছবিঃ https://unsplash.com/photos/Qu-y7DVsG5U

নিজে ফার্স্ট এইড বক্স না বানাতে চাইলে বাজার থেকেও ভাল মানের একটি বক্স কিনে নিতে পারেন। কেনার সময় অবশ্যই এর গুনগত দিকগুলো ভাল করে দেখে নিবেন। ভেতরে বাতাস প্রবেশ করবে না কিংবা শুষ্ক থাকবে ভেতরটা এমন একটি বক্স নিতে পারেন।

ফার্স্ট এইড বক্সে কী কী সরঞ্জাম এবং দরকারী ঔষধ রাখবেন? প্রাথমিক চিকিৎসা করবেন খুব সহজে

১। জীবানুমুক্ত গজ কাপড়ঃ কোন কেটে যাওয়া বা ক্ষত জায়গায় ব্যান্ডেজ করে দিতে গজ কাপড়ের দরকার হয়। প্রাথমিক চিকিৎসা করতে এর গুরুত্ব অপরিসীম।

প্রাথমিক চিকিৎসা
প্রাথমিক চিকিৎসা প্রাথমিক চিকিৎসা জীবানুমুক্ত গজ কাপড় দ্বারা ব্যান্ডেজ করা হচ্ছে
ছবি- https://unsplash.com/photos/rEsCCEPRPcA

২। চিমটা এবং কাঁচিঃ কোন কিছু কাটা এবং সেলাই করা দরকার হলে চিমটা দরকার হয়। প্রাথমিক চিকিৎসা করার সময় এমন দরকারী জিনিসপ্ত্র খুঁজে পাওয়া যায় না, তাই আগে থেকেই সংরক্ষন করুন।

৩। রোলার ব্যান্ডেজঃ ড্রেসিং কে যথাস্থানে বসিয়ে দিতে কিংবা চাপ প্রয়োগে রক্ত প্রবাহ বন্ধ করার জন্য এমন ব্যান্ডেজ ব্যবহার করতে হয়।

ফার্স্ট এইড বক্স তৈরি করা

৪। পচনরোধক মলমঃ কোন কাটা স্থানে পচনরোধক মলম দিয়ে তবেই ব্যন্ডেজ করে দিতে হয়। তা না হলে ক্ষত থেকে পচন শুরু হতে পারে। এন্টিসেপটিক ক্রিম যেমন- স্যাভলন, ডেটল, হাইড্রোজেন-পার-অক্সাইড, পভিসেভ ইত্যাদি প্রাথমিক চিকিৎসা করতে লাগে।

৫। লিউকোপ্লাস্টঃ প্রাথমিক চিকিৎসা করার সময় ক্ষতের উপর ব্যান্ডেজ আটকানোর জন্য ব্যবহার হয়।

৬। হ্যান্ড গ্লাভস বা হাত মোজাঃ সাবধানতার জন্য যিনি প্রাথমিক চিকিৎসা করবেন তিনি যেন হাত মোজা পরে কাজ করেন, তা না হলে জীবানু ক্ষতকে আরো বেশি পরিমানে আক্রান্ত করতে পারে।

৭। বার্ন ক্রিম বা দগ্ধ মলমঃ পুড়ে গেলে বার্ন ক্রিম লাগাতে হয়। প্রাথমিক চিকিৎসার ক্ষেত্রে এর গুরুত্ব অপরিসীম।

এছাড়াও থার্মোমিটার, ব্লাড প্রেসার মাপক যন্ত্র(এখন ডিজিটাল কিনতে পাওয়া যায়), পিন, ব্যাথা নাশক ঔষধ বা পেইন কিলার, স্যালাইন, হিস্টামিন বা হিস্টাসিন জাতীয় ঔষধ ফার্স্ট এইড বক্স এ রাখা দরকার হয়। প্রাথমিক চিকিৎসা করার জন্য এমন জিনিস হাতের কাছেই রাখুন। সুস্থ্য থাকুন।

মন্তব্যসমূহ

জনপ্রিয় হচ্ছে

নিবন্ধন

লগিন করুন

পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

আমাদের সম্পর্কে

কিভাবে ইনফো - Kivabe Info

কিভাবে ডট ইনফো একটি বাংলা তথ্য শেয়ারিং সাইট। এএখানে আপনি নিজে যেমন জানতে পারবেন তেমনি চাইলে সবাইকে জানাতেও পারবেন।

সোশ্যাল মিডিয়া

যোগাযোগের জন্য

© কিভাবে ইনফো - Kivabe Info 2013-2021

Developed by: Behostweb.com

আপনি আমাদের সাথে একমত হয়ে এই ওয়েবসাইট ভিজিট করছেন, এর মানে আপনি আমাদের কুঁকি পলিসি গ্রহন করেছেন। পড়ুন প্রাইভেসি পলিসি . সব কুঁকি মেনে নিন