অফিসে সহকর্মীর সাথে আচরন

অফিসে সহকর্মীর সাথে আচরন করা হয়ত শেখার কিছু নয়। আপনার সাথে সব সহকর্মীর ভাল সম্পর্ক আছে তো? খেয়াল করুন, কিভাবে অফিসে সহকর্মীর সাথে আচরন করলে ভাল পরিবেশ তৈরী হতে পারে। অনেক সময় মানুষ বলে থাকেন, অমুক অফিস খুব খারাপ, অমুক অফিসে কালচার নেই। আরো অনেক কথাবার্তা। অফিস খারাপ বলতে সাধারনত অফিসের কর্মচারী কর্মকর্তাদের আচরন এবং চালচলনকেই বোঝায়। তাই আসুন একটু দেখা যাক কিভাবে অফিসে সহকর্মীর সাথে ভালভাবে কাজ করবেন?

উত্তেজিত হবেন না, অফিসে সহকর্মীর সাথে আচরন করুন সতর্কতার সাথে

যে কোন কঠিন সময়ে উত্তেজিত হয়ে যাওয়া স্বাভাবিক। অফিসে সহকর্মীর সাথে আচরন করতে এড়িয়ে যান। আপনি যদি ভাল করতে চান তবে মেনে চলুন। অনেক সময় নীরবে আপনি জটিল সমস্যার সমাধান করতে পারেন। মেজাজ গরম করে কিছুই হয় না। সম্পর্ক খারাপ হয়। চুপ থেকে বিরক্তি প্রকাশ করুন। কথা না বলে বিরক্তি প্রকাশ করুন। অন্য দিকে ফিরে গিয়েও তার সাথে বিরক্তি প্রকাশ করতে পারেন। সম্পর্ক যেন কমে না যায় সেদিকে খেয়াল করুন। একে অন্যের সাথে জটিলতা এড়িয়ে চলুন।

কিভাবে ইনফো এ লিখুন লেখক হয়ে সবাইকে কিছু তথ্য জানান

লেখালেখি করে আপনি জিততে পারেন আকর্ষনীয় পুরষ্কার! বিস্তারিত দেখুন

কাজের বাইরে অফিসে সহকর্মীর সাথে আচরন বা চলাফেরা কম করুন

অফিসে সবাই কাজের জন্য আসেন। অফিসে সহকর্মীর সাথে আচরনআপনিও কাজেই এসে থাকেন। কাজ করতে গেলে নিজেদের মধ্যে যতটুকু কথা বলা কিংবা ব্যক্তিগত আচরন দরকার ততটুকুই করার চেষ্টা করুন। তাহলে অফিসের পরিবেশে সঠিক সুস্থ্যতা থাকে। যদি ব্যক্তিগত নানা আচরন বা কার্যকলাপ নিয়ে আসেন তখন একটা জটিলতা তৈরী হতে পারে। কথাবার্তার সময় কম কথা বলা উচিৎ।

অফিসে সহকর্মীর সাথে আচরন করতে ব্যক্তিগত কোন বিষয়ে হার্ট করবেন না

কারো চেহারা বা আউটলুক নিয়ে কথা না বলা। অফিসে সহকর্মীর সাথে আচরন করতে গেলে তার নিজের সম্পর্কে কোন আঘাত দিয়ে কথা বলা যাবে না। বললেন তো শেষ হয়ে গেলো, কারন অনেকেই প্রকাশ করেন না। কিন্তু পরেই আপনার একটা ছোটবড় ক্ষতি করে দিতে পারে। অফিসে প্রত্যেক সহকর্মী আপনার ক্যারিয়ারের জন্য গুরুত্বপূর্ন। কেউ যদি একবার কখনো বেঁকে বসে তবে আপনার জন্য ক্ষতি অপেক্ষা করছে। যে কোন দিন কিংবা যে স্থানে বা অন্য কোম্পানীতেও কোন একদিন তা হতে পারে।

সহকর্মীর ভাল দিক নিয়ে কথা বলতে পারেন

আপনার কোন সহকর্মীর যদি ভাল কোন আচরন আপনার চোখে পড়ে তখন সেই বিষয়টি নিয়ে কথা বলতে পারেন। এমনকি আপনি অফিসে অন্যান্য কাউকে যদি কিছু শেখাতে চান, ভাল আচরনটি নিয়ে সবার সামনে কথা বলতে পারেন। এতে অন্যরা এই আচরনটি আয়ত্বে নিয়ে আসবে। আমি নিজে কখনো কাউকে কিছু ভুল আচরন ধরিয়ে দিলে অন্য কারো ভাল আচরন উদাহরন দিয়ে বলি। কিন্তু সে যে ভুল আচরন করেছে তা সরাসরি বলি না। এর ফলাফল খুবই ভাল হয়েছে। আমি দেখেছি, সেই সহকর্মী খুব দ্রুত একই বিষয়ে নিজেকে সংশোধন করে নিয়েছেন।

সহকর্মীকে সরাসরি তার খারাপ আচরন নিয়ে কথা না বলা

কারো আচরনে ত্রুটি থাকতেই পারে। তা যদি কোন জনসম্মুখে বলে দেন তখন ঝগড়াসহ নানান পরিবেশ তৈরী হয়ে যেতে পারে। সহকর্মী যদি জুনিয়র পজিশনে হয় তখন হয়ত তিনি কিছু না বলতে পারেন। কিন্তু কাউকেই জনসম্মুখে তার আচরন ভুল কিংবা বকাঝকা করা ঠিক নয়।

হাসি মুখে কথা বলুন, অফিসে সহকর্মীর সাথে আচরন করতে সহায়ক

অফিসে সহকর্মীর সাথে আচরন যদি হয় হাসিমুখে কথা বলা দিয়ে, তখন কিছু অফিসে সহকর্মীর সাথে আচরনসাধারন সমস্যা অল্পতেই সেরে যেতে পারে। অনেকেই এই বিষয়ে একমত পোষণ করেছেন, হাসিমুখের যে কোন মানুষের সাথে কমপক্ষে ২০গুন বেশি ভাল ভাবে কথা বলেন। বিরক্তমুখের মানুষের সাথে উপায় না পেয়েই কথা বলেন।

অফিসে সহকর্মীর সাথে আচরন করতে তার কথায় সায় দিন, কাজে সাহায্য করুন

অফিসে সহকর্মীর সাথে যখন ভাল আচরন করবেন তখন সে আপনার কাজেও সাহায্য করবে। আপনিও আগ বাড়িয়ে কিংবা যে কোন ভাবে তাকে সাহায্য করুন। তার সাথে কাজের সুসমপর্ক বাড়ান। তাহলে সে আপনার জন্য খুব ভাল সাপোর্ট হতে পারে।

কোন কিছুই ব্যক্তিগতভাবে নিবেন না

অফিসে কোন ব্যক্তিগত কাজ থাকা যেমন অপরাধ তেমনি কারো সাথে যা কিছুই ঘটুক তা ব্যক্তিগত হিসবে নিবেন না। অফিসের জন্য কিংবা অফিসের হয়ে চিন্তা করুন। তাহলে অনেক সমাধান চলে আসতে পারে।

কোন সমস্যার সময় নিজেকে সাহায্যকারী হিসেবে নিযুক্ত করুন

অফিসে নানান সময়ে নানান ধরনের সমস্যা হতে পারে। এর জন্য নিজেকে সমস্যা দূর করনে নিযুক্ত করতে পারেন। এটাও মনে রাখুন যে আপনি নিজেই কোন সমস্যা তৈরী করেছেন কি না। যদি সমস্যা ধরতে পারেন তার সমাধান খুঁজুন। আশেপাশের সহকর্মীর সমস্যা বুঝতে পারা আপনার একান্তই দ্বায়িত্ব।

ব্যাক্তিগত ব্যবস্থাপনায় আরো পারদর্শী আচরন করুন

অন্যকে জানার আগে কিংবা অন্যের সাথে আচরন করার আগে নিজের সম্পর্কে আরো জানুন। নিজে কী ক্রটি নিয়ে আছেন তা দেখুন। যদি নিজের কথাবার্তায় ত্রুটি থাকে তা সংশোধন করুন। আচরনে কোন ত্রুটি থাকলেও ত্রুটি মুক্ত করুন। পোশাকপরিচ্ছেদ ভাল এবং মার্জিত পরেছেন কি না তা দেখুন। অন্যের আচরন খেয়াল করার আগে সমস্যাটাকে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে সমাধান করুন।

কখনোই ইমেইল এ রাগ প্রকাশ করবেন না

কোন সহকর্মীকে ইমেইল বা অন্যান্য অফিসিয়াল ডকুমেন্টে রাগ ঝেড়ে কিছু করবেন না। এটা খুবই খারাপ প্রভাব ফেলে।

রাগ থাকলে নীরবে বলুন, অফিসে সহকর্মীর সাথে আচরন করুন দক্ষতার সাথে

একান্তই যদি কাউকে কিছু বলতে হয় আড়ালে ডেকে নিয়ে চা বা কফি খেতে খেতে বলুন। এতে তিনি তার ভুল যদি বুঝতে পারেন তবে তো ভালো। যদি নাও বুঝতে পারেন তাও আরেকবার চেষ্টার জন্য রেখে দিন। জোরাজুরি করে কিছু বলার দরকার নেই। একবার না হলে বারবার চেষ্টা করুন। কোনবারেই না হলে অফিসের উপরের লেভেলে কথা বলতে পারেন। এবং তা জানানোর আগেও তাকে জানিয়ে নিন। এতে হয়ত তিনি নিজেকে সংশোধন করতে পারেন।

আপনাকে সবাই পছন্দ করবে না, এটা মেনে নিন

অফিসে সহকর্মীর সাথে আচরন করুন এবং মেনে নিন সবাই আপনাকে পছন্দ করবে না। কেউ কেউ পছন্দ করবে আবার কেউ কেউ আপনাকে অপছন্দ করবে। অনেক মহৎ মানুষেরও নিন্দুক ছিলো। এজন্য নিজেকে নিজের মত তৈরী করুন। তাহলে আরো সহজ হবে কাজ করতে। অফিসে কাজের পরিবেশে নিজেকে মানিয়ে নিয়ে অন্য সব কিছু আলাদা করে রাখুন।

আশাকরি একটি অফিসে সহকর্মীর সাথে আচরন করতে আপনার এখন থেকে কিছুটা হলেও সহজ লাগবে।

মন্তব্যসমূহ

জনপ্রিয় হচ্ছে

নিবন্ধন

লগিন করুন

পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

আমাদের সম্পর্কে

কিভাবে ইনফো - Kivabe Info

কিভাবে ডট ইনফো একটি বাংলা তথ্য শেয়ারিং সাইট। এএখানে আপনি নিজে যেমন জানতে পারবেন তেমনি চাইলে সবাইকে জানাতেও পারবেন।

সোশ্যাল মিডিয়া

যোগাযোগের জন্য

© কিভাবে ইনফো - Kivabe Info 2013-2021

Developed by: Behostweb.com

আপনি আমাদের সাথে একমত হয়ে এই ওয়েবসাইট ভিজিট করছেন, এর মানে আপনি আমাদের কুঁকি পলিসি গ্রহন করেছেন। পড়ুন প্রাইভেসি পলিসি . সব কুঁকি মেনে নিন