হাতের-লেখা-সুন্দর-করা-যায়, হাতের লেখা সুন্দর করা

হাতের লেখা সুন্দর করা নিয়ে একটি লেখা হয়ত পড়েছেন এই ওয়েব সাইটে। না পড়লে এখন পড়ে দেখতে পারেন। কিভাবে হাতের লেখা সুন্দর করা যায়।  আজ আমি আরো কিছু নতুন আইডিয়া নিয়ে হাজির হয়েছি আপনাদের সামনে। আসুন জেনে নিই কিভাবে হাতের লেখা আরো সুন্দর করা যায়? ছোটদের জন্য কিছু টিপস আর বড়দের জন্যও থাকছে পরামর্শ।

হাতের লেখা সুন্দর করার জন্য কয়েকটি গুরুত্বপূর্ন বিষয় ভাল ভাবে মনে রাখুন-

কয়েকটি বিষয় আপনাকে মাথায় রাখতে হবে। সে অনুযায়ী অভ্যাস গড়ে তুলতে হবে। প্রথম প্রথম হয়ত কিছুটা কষ্ট হতে পারে। তবে লেগে থাকলে এ সমস্যার সমাধান নিশ্চিত। তার পরেও নিজে থেকে সব কিছু করার মানষিকতাও জরুরী। দেখুন আপনি কি কি করলে অন্তত স্বাভাবিক ভাবে হাতের লেখা সুন্দর করা কে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারেন। কয়েকটি সাধারন নীয়মাবলী নিয়ে আলাপ করা যাক।

লেখার সময় পুরো বাহুটাকেই পরিচালনা করুন, শুধু হাতের নাড়াচাড়ার চেয়ে এটাই কার্যকরি বেশি।

লিখতে গেলে অনেকেই শুধু হাত ঘোরান, কিংবা কবজি ঘুরিয়ে লেখেন। পরামর্শ দাতাদের মতে, পুরো বাহুটাকেই ঘুরিয়ে নিন। তাহলে আপনি একটা হৃদম পাবেন। আর সেই নাড়াচাড়া অভ্যস্ত করতে পারলে আপনার লেখার গতি অনেক বেড়ে যাবে। আপনি লিখবেন অনেক বেশি দ্রুত। বড় করে লেখা কিংবা যে কোন শেপ নিয়ে লেখার জন্য এর আসলে বিকল্প হয় না। নিজে চেষ্টা করে দেখুন।

আরামদায়ক ভংগীতে কলম বা পেন্সিল ধরুন, হাতের লেখা সুন্দর করা চর্চার জন্য  জরুরী।

অনেকেই কলম এমনভাবে ধরেন যেন ভেংগে ফেলবেন। এতে হাত ব্যাথা হয়ে যায়। আপনি লিখতে পারবেন অনেক কম। অন্যদিকে যখনি আপনি কলম বা পেন্সিল আলতো করে ধরবেন, আরামদায়ক ভংগীতে ধরবেন তখনি দেখবেন ব্যতিক্রম। লিখতে লিখতে হাত আর ব্যথা হবে না। লেখার পরিসর বৃদ্ধি হবে।

কলম বা পেন্সিল পরিবর্তন করুন, হাতের লেখা সুন্দর করা পদ্ধতিতে কাজে লাগবে

আপনার বর্তমান কলম বা পেন্সিলের ধরন পরিবর্তন করে দেখুন। চিকন নিব কলম, কিংবা ২বি পেন্সিল চেক করে দেখুন। অথবা অন্য কোন কিছু নিয়ে দেখুন। অনেক সময় কলমের বা পেন্সিলের ব্র্যান্ড এর কারনেও অনেক তফাৎ দেখা দেয়। আপনি সে সব চেক করে দেখতে পারেন। কোনটায় আপনি বেশি আরাম অনুভব করেন। অনেক আগে মানুষ রেডলিফ কলম দিয়ে লিখতেন। আমি এক সময় রেডলিফ কলম দিয়ে মাধ্যমিক পরীক্ষা দিয়েছিলাম। এখন আমার মনে হয় সেই কলমের চেয়েও ম্যাটাডোর হাই স্কুল কলম কিছুটা ভাল। তবে ম্যাটাডোর কলমই যে একমাত্র ভাল তা না মেনে নিয়ে নিজেই কিছু ব্রান্ড যাচাই করে নিন। আরো জানতে পড়ুন, কিভাবে পচন্দের কলম বা পেন্সিল নির্বাচন করবেন? 

বেসিক আকার আকৃতি আঁকুন, হাতের লেখা সুন্দর করার জন্য জরুরী।

আপনি যে কোন বেসিক আকার যেমন গোলাকার বা বৃত্তাকার কিছু, লাইন, সোজা লাইন, ত্রিকোন, চতুর্কোন। মুক্ত হাতে যে কোন জিনিস করে দেখতে পারেন। চতুর্ভুজ কিংবা ত্রিভুজ আঁকতে পারলে আপনি বুঝবেন তার সঠিক কতখানি হয়েছে। কতটা সোজা হয়েছে। এসব বিবেচনায় আনার সময় আপনি অভিজ্ঞ হয়ে উঠবেন যে কোন আকারের অক্ষর বা চিহ্ন লিখতে পারবেন।

প্রতিদিন একটি করে প্যারাগ্রাফ লিখুন, হাতের লেখা সুন্দর করার জন্য একটি বড় উপায়।

আপনার যতই ব্যাস্ততা থাকুক তার মধ্যেই প্রতিদিন একটি করে অনুচ্ছেদ বা প্যারাগ্রাফ লিখুন। এতে হাতের লেখা সুন্দর করা চর্চা অব্যাহত থাকবে। নতুন কিছু না হলেও আপনার যা কিছু মনে আসে সেখান থেকেই লিখুন। অনেকেই নিজে থেকে লিখতে পচন্দ করেন। আপনার যদি সে রকম কোন ব্যাপার না থাকে তবে পত্রিকা বা কোন বইয়ের একটি অনুচ্ছেদ নিয়ে লিখতে বসে যান।  হাতের লেখা সুন্দর করা যাবে।

 

আশাকরছি তথ্যগুলো কাজে লাগবে। যদি কোন মতামত কিংবা পরামর্শ থাকে দয়াকরে কমেন্ট এ লিখুন। প্রশ্ন থাকলেও লিখতে পারেন। তবে খুব দ্রুত প্রশ্নের উত্তর পেতে প্রশ্ন করুন লিংকে ক্লিক করে প্রশ্ন সাবমিট করুন।

ভাল লাগলে লাইক কিংবা শেয়ার করুন, আপনার প্রিয়জন বা বন্ধুদের জানিয়ে দিন।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

ভেরিফাই করুন--- *