790-x-90

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

বন্ধু সংখ্যা বাড়াবেন

বন্ধু মানুষের জীবনের এমন একটি উপাদান যা অস্বীকার করে বেঁচে থাকা যায় না। তাই বন্ধু অপরিহার্য বলা চলে। এই জীবনে আপনার কত জন বন্ধু দরকার? আমার মনে হয় অনেকের মতে দু’জন কিংবা অনেক জন। বাস্তবে আপনার বন্ধু দরকার ঠিক ততজন যতজন আপনি চান। এবং আপনি যদি খুব ভাল মানের জীবন ধারন করতে চান তবে আপনাকে অনেক বন্ধু জোগাড় করতে হবে। কারন বন্ধু হয় স্বার্থহীন সম্পর্কের মাঝে একে অন্যের সহায়ক একটি অবস্থানের ভিত্তিতে। এতে করে দরকার হয় নানান কাজে অভিজ্ঞ নানান বন্ধু। এর ফলে জীবনের ধাপ গুলো সহজ হয়। কিভাবে আপানার বন্ধু সংখ্যা বাড়াবেন? আসুন জেনে নেই উপায়গুলো।

মোট কথা ভাল এবং প্রকৃত বন্ধুর কোন জুড়ি নেই। বন্ধুত্ব শুধু করলেই হয় না, সমান তালে তা রক্ষা করতে হয়। বন্ধুর চাহিদা এবং মানুষিকতাকে অনুশীলনের মাধ্যমে গুরুত্ব দিয়ে নিঃস্বার্থ তার উপকার করতে হয়। তবেই অটোমেটিক রেজাল্ট পেয়ে যাবেন আপনি। আপনি চাওয়ার আগেই হেল্প পাবেন কার কাছ থেকে? যাকে আপনি চাওয়ার আগেই হেল্প করেছেন। বিষয়টি এমন। তাই বন্ধুত্ব আসলেই অনুশীলনের বিষয়।

কিভাবে আপানার বন্ধু সংখ্যা বাড়াবেন ?

বন্ধুর সংখ্যা বাড়াতেই হবে এমন মানষিকতা বাদ দিন। ভাল বন্ধু একজন বা দু’জন-ই যথেষ্ট। তবে এটা সম্পদের চেয়ে কম কিছু নয়। একজন মানুষের অনেক বন্ধু থাকা সম্পত্তির মতোই। তাই ভাল বন্ধুত্ব আর সম্পদের মধ্যে তফাত শুধু এই যে সম্পদের মুল্য নির্ধারন করা যায়, বন্ধুত্যের মুল্য নির্ধারন করা যায় না। এটা অমুল্য। তাই বুঝে শুনে জায়গা দিন একজন মানুষ কে আপানার বন্ধুর তালিকায়। আপানার বন্ধু সংখ্যা বাড়াবেন  যেভাবে তা নিচের কিছু ধাপে দেখানো হলো।

বন্ধু সংখ্যা বাড়াবেন? নিচের কয়েকটি ধাপ মনে রাখুনঃ

১। প্রথম দিন পরিচয় হবার সাথে সাথেই ভাবুন তিনি কেমন, বন্ধুর কোন গুন আছে কি-না।
২। এটা ভাবলে ভুল হবে যে তাকে দিয়ে আপানার কি উপকার হবে। তাই এই কাজটা করে কেবল স্বার্থা সন্ধ্যানী কেউ।
৩। বন্ধু ঘোষনা করার আগে তাকে একটা জায়গা দিন। এই যেমন আমি আপনার ফ্যান এই জাতীয় কিছু।
৪। মুল্যায়ন করুন তার ব্যাক্তিত্বকে। যদি খারাপ ঠেকে তবে একটু ইঙ্গিত দিন শুধরে দেয়া যায় কি-না। যদি কয়েকবার ট্রাই করেও না পারেন তবে আশা ছেড়ে না দিয়ে ফ্যান পর্যন্তই রেখে দিন। আর না এগোনোই ভাল।
৫। কাজের মাধ্যমে স্বীকৃতি দিন, তিনি আপনার বন্ধু নন তবু আপনি তার বন্ধু। মনে রাখবেন, এখানেও প্রতিদান আশা করবেন না।
৬। এই পর্যায়ে আমি মনে করি তিনি আর নিজেকে ধরে রাখতে পারবেন না। আপনার প্রতি বন্ধুর প্রস্তাব করবেন।

আপনার জীবন বন্ধু সহযোগী হয়ে উঠুক, আনন্দময় হয়ে উঠুক এমন আশা রইল।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

ভেরিফাই করুন--- *