790-x-90

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

ফেইসবুক

ফেইসবুক শুধুমাত্র বিনোদন কেন্দ্র নয়, এখানে নিজেকে স্মার্টলি প্রকাশ করারও অনেক উপাদান আছে। আপনাকে যারা চেনেন তারা সাধারণত কাজে কিংবা আলাপে আপনার সম্পর্কে অনেক জেনে শুনে তবেই ধারনা পেয়ে থাকেন। কিন্তু ভার্চুয়াল এই ভুবনে যে বা যারাই আপনাকে চিনছে তারা আপনার প্রতিদিনের স্ট্যাটাস পড়ে কিংবা দেখেই আপনাকে চিনছে। যদি আপনি শুধু দেখে শুনে পরিচিত পরিসরে ফেইসবুকের ব্যাবহার সীমাবদ্ধ রাখেন তবে সেখানেও একইরকম।

আজকের আলোচনার বিষয় হচ্ছে ঠিক কিভাবে আপনি ফেইসবুকে আপডেট থাকবেন? হয়ত ভাবছেন এটা আবার জানার কি বিষয় হলো? আপডেট তো থাকছিই। হ্যাঁ, সত্যি আপনি আপডেট আছেন। কিভাবে আপডেট আছেন আর কিভাবে থাকা উচিত সেটাই আলোচ্য বিষয়।

প্রথমেই জেনে নেয়া যাক আমরা কিভাবে আমাদের স্ট্যাটাস লিখি। কয়েকটি ভাগে আমি এসব স্ট্যাটাস কে বিশ্লেষণ করার চেষ্টা করছি।

আবেগীয় পোষ্ট: স্ট্যাটাস লেখার আগে আমাদের মধ্যে যেরকম আবেগ কাজ করে তার হুবহু যে স্ট্যাটাস এ উঠে আসে সেটাই আবেগীয় পোষ্ট। এর একটা উদাহরণ দেয়া যেতে পারে।

– আমাকে কেউই ভালবাসে না, আমার বউও না, ছেলে মেয়ে তারাও না-

এই স্ট্যাটাস পড়ে মানুষ আবেগাপ্লুত হয়ে পড়বে। আপনার ভালবাসার ঘাটতি পড়েছে সেটা পুরোটাই আবেগীয়। এ ধরনের পোষ্ট করার আগে অনেক দ্বায়িত্বশীলতার পরিচয় দিতে হয়। যেমন, কথাটা কি বলাই লাগবে নাকি না বললেও চলে? আপনার ব্যাক্তিগত একটা দুর্বল দিক সবার সাথে শেয়ার করছেন কেউ সুযোগ নেবে না তো? অথবা আপনার সম্পর্কে তারা কী ভাববে! এসব মাথায় নিয়ে আসা উচিত। আপনি চাইলেই অনেক বেশি মননশীলতার পরিচয় দিতে পারেন। পজেটিভ কিছু ধারনা শেয়ার করুন। দূর্বলতা ঝুকির উদ্রেক করে।ফেইসবুকে আপডেট থাকার অনেক বিকল্প পথ আছে। খুজে বের করুন।

কপি পোষ্টঃ আজকাল অনেকেই ভাল ধারনা আর লেখা লিখে থাকেন ফেইসবুক ওয়ালে কিংবা গ্রুফে। তারা কিভাবে লিখেন বা কোথা থেকে লেখার আইডিয়া পান তা অনুশীলন করা যেতে পারে। কিন্তু তাদের লেখা হুবহু কপি করে এনে নিজের ওয়ালে প্রকাশ করে একেবারে নিচের দিকে লিখলেন(সংগৃহিত), এটা আপনার ব্যাক্তিত্বের সাথে যায় না। এটা সত্যি যে ফেইসবুকে লেখার কোন স্বত্ত্ব নেই। কপিরাইট মামলা করতে পারবে না। কিন্তু কেন? আপনি অন্যের লেখা আপনার ওয়ালে শেয়ার করুন, তাতে আপনার ব্যক্তিত্বে দ্বায়িত্বশীলতা বাড়ে। চুরি আর কপিকরা একই জিনিস।

রুচিহীন পোষ্টঃ অনেকেই হাবিজাবি আর হিবিজিবি টাইপের লেখা কিংবা ছবি ফেইসবুকে পোষ্ট করে বসেন। এসবের কারনে আপডেট থাকার চেয়ে বেশি সমালোচিত হন। আপনার লেখা কিংবা ছবি পড়ে অথবা দেখে কারো ভাল না লাগলে তা ফেইসবুকে কেন দিতে হবে? আমি বলছি না আপনি আপনার দুঃখ শেয়ার করবেন না। দুঃখ শেয়ার করতে পারেন। দুঃখ শেয়ার যেন অন্যের দুঃখের কারন না হয় সেদিকে খেয়াল রাখবেন। আরো রুচিশীল হয়ে আপডেট থাকুন। ফেইসবুকে আপডেট থাকাটা যেমন জরুরী আবার রুচিশীলতার পরিচয় দেয়াও অনেক বেশী জরুরী। স্মার্ট হবার জন্য রুচিশীল হওয়া অনেক বেশি দরকারি।

ছবি শেয়ারঃ ফেইসবুকে বেশি জনপ্রিয় হচ্ছে ছবি শেয়ার। ছবি শেয়ারিং এর জন্য ফেইসবুকে হুলস্থুল পড়ে যায়। কেউ সেলফি, কেউ লেগফি, কাউফি, *ক্সফি, লাভফি, ইত্যাদি ফটোতে ভরে দেন নিজেদের ফেইসবুক ওয়াল। দেশের আনাছে কানাছে যে বা যারাই আছে তারাই মনে করে নিজের একটু খোলামেলা ছবি ফেইসবুকে প্রকাশ করে স্টার হয়ে যাবেন। এমন নয় বিষয়টা। ফটো বা ছবি ভিডিও অবশ্যই প্রচার করবেন। সবগুলো নয়। যেগুলো অনেক দূর্বল চিত্তের মানুষের সহ্য ক্ষমতার বাইরে সেগুলো পাবলিক প্লেসে শেয়ার করার ব্যাপারে আরো যত্মশীল হতে হবে। সেদিন দেখলাম- চাকায় পিষ্ট মানুষের ছবি শেয়ার করে দিয়েছে কোন এক আহাম্মক। সেটা আরো লোকজনে শেয়ার করছেন। ছবি দেখেই আমার গায়ে কাঁটা দিয়ে উঠল। এসব সহ্য করার জন্য ক্ষমতা লাগে।

facebookকাউকে ছোট করার জন্য পোষ্টঃ অনেকেই করেন, কাউকে ছোট করে ছবি বা ভিডিও শেয়ার করেন। এরকম করলে আপনাকেই মানুষ খারাপ জানবে। আপনি ফেইসবুকে আপডেট থাকার জন্য অন্যের উপর নির্যাতন করতে পারেন না। কাউকে সম্মান করতে না পারলে চুপ করে থাকা অনেক ভাল। কেউ যদি জনবিরোধী কাজ করেন তবে আপনি কিছু করতে পারেন। প্রতিবাদ করতে ফেইসবুক ব্যাবহার করুন। আমি সমর্থন করি। জনগনের জন্য তো কোন মিডিয়া নাই, ফেইসবুক হচ্ছে মিডিয়া। শেয়ার করুন এমন সব ঘৃন্য ঘটনা যা আমাদের তীব্র প্রতিবাদ প্রকাশ করে। তবু কাউকে ছোট করা চলবে না।

চ্যাটিংঃ আজকাল অনেকেই নতুন নতুন বন্ধুদের সাথে চ্যাটিং করতে চান। করুন, চ্যাট করতে মানা নেই।  তবে কাউকে বিরক্ত করবেন না।

ভয়েস বা ভিডিও কলঃ ফেইসবুকে ভিডিও কল বা ভয়েস কল করার সুযোগ পাওয়া গেছে। এজন্যই কিন্তু আপনি যখন তখন যে কাউকে কল দিতে পারেন না। কারো সাথে কল দিতে গেলে ন্যুনতম ভদ্রতা বজায় রাখুন। আগে ভাবুন আপনি যাকে কল দিচ্ছেন তিনি কি বিষয়ের জন্য আপনার কল রিসিভ করবেন? কোন জরুরী কিছু আছে? শুধু শুধু অন্যের সময় নষ্ট করবেন না। ভদ্রতা রক্ষায় তিনি হয়ত আপনাকে কিছু বলবেন না, তবে একসময় আপনি তার থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যেতে পারেন।

ফেইসবুক নিজেকে আপডেট রাখার একটা জায়গা। অন্যের কাছে নিজের দরকারী তথ্য পৌঁছে দেবার সর্বোচ্ছ সুযোগ। এই ফেইসবুক ফ্রী হবার কারনেই এত বেশি মানুষের আনাঘোনা এখানে। যদি পেইড হতো তবে এখানে অনেক কম মানুষের দেখা মিলত। এত মানুষের ভিড়ে সামাজিক জীব হিসাবে আপনার দ্বায়িত্ব অনেক। নিজের দ্বায়িত্ব পালনের সাথে সাথে আপনি ফেইসবুক কে রাখতে পারেন আরো সুন্দর। কোন অসামাজিক ছবি বা পোষ্ট থাকলে তা রিপোর্ট করুন। রিপোর্ট করলে ফেইসবুক কর্তৃপক্ষ তা মুছে ফেলে। আপনি যে রিপোর্ট করেছেন তা কিন্তু জানতে দেয়া হয় না।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

ভেরিফাই করুন--- *